• , |
  • ঢাকা, বাংলাদেশ ।
সর্বশেষ নিউজ
* সমমনাদের সঙ্গে বিএনপির বৈঠক : রোডমার্চ, লংমার্চ ও সমাবেশের আসছে * আদালতের রায়ের পর শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের যৌক্তিকতা নেই: কাদের * রোববার কোটা বিরোধীরা সড়কে নামলেই কঠোর ব্যবস্থা নেবে সরকার * পার্লামেন্টে আস্থা ভোটে হারলেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী * রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু করতে ইতিবাচক মিয়ানমার : পররাষ্ট্রমন্ত্রী * বাংলাদেশ সব দিক থেকেই ডুবে গেছে : আমীর খসরু * আবারো মিয়ানমারের শতাধিক সেনা ও বিজিপি সদস্য পালিয়ে এসেছে টেকনাফে * শনিবার সংবাদ সম্মেলন করে পরবর্তি কর্মসূচী ঘোষণা শিক্ষার্থীদের * অ্যান্ডারসনের বিদায়ী টেস্টে ইংল্যান্ডের দাপুটে জয় * রাবি শিক্ষার্থীদের রেললাইন অবরোধ

বগুড়ায় থানায় হামলা করে পুলিশকে মারপিট, নুরুর ৬ দিনের রিমান্ড

news-details

ছবি: সংগৃহীত


বগুড়ার শাজাহানপুরে আসামি ছিনিয়ে নিতে থানায় হামলা, পুলিশকে মারপিট, সরকারি কাজে বাধা, অস্ত্র ও মাদক উদ্ধারের পৃথক দুটি মামলায় উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের অব্যাহতি পাওয়া সাধারণ সম্পাদক, ইউপি চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান নুরু ওরফে ঠ্যাং কাটা নুরু ও তার বাহিনীর আট সদস্যের রিমান্ড মঞ্জুর হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে বগুড়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট-৩ নুরুকে অস্ত্র ও মাদক মামলা এবং থানায় হামলা, পুলিশকে মারপিট ও সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার মামলায় তিন দিন করে মোট ৬ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

এছাড়া থানায় হামলা, পুলিশকে মারপিট এবং সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার মামলায় অপর আটজনকে ৩ দিন করে রিমান্ডে নেওয়ার আদেশ দেওয়া হয়েছে।

আসামিরা হলেন- বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার মধ্য মাঝিড়া গ্রামের বাসিন্দা মাঝিড়া ইউপি চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান নুরু (৪০), তার বাহিনীর সদস্য রহিমাবাদ বি-ব্লকের সাদ্দাম হোসেন রবিন (২৩), রহিমাবাদ দক্ষিণপাড়ার রমজান আলী (৩১), খলিশাকান্দির সাইদুর রহমান খোকন (৩৩), খলিশাকান্দি দক্ষিণপাড়ার বোরহান উদ্দিন (২৯), মাঝিড়া মধ্যপাড়ার সেরাজুল ইসলাম (২০), রহিমাবাদ উত্তরপাড়ার আমিনুল ইসলাম (২৬), কাটাবাড়িয়া মধ্যপাড়ার মো. মিতুল (২৬) এবং সাজাপুর নতুনপাড়ার ওহাবুজ্জামান নাইম (৩৪)।

পুলিশ, এজাহার ও স্থানীয় সূত্র জানায়, শাজাহানপুর থানা পুলিশ গত ৬ এপ্রিল রাত ৯টার দিকে আড়িয়াবাজারে দুটি বার্মিজ চাকুসহ হত্যা ও একাধিক মামলার আসামি আড়িয়া ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মিঠুনকে গ্রেফতার করে। রাত ১০টার দিকে ২০-২২টি মোটরসাইকেলে নুরুজ্জামান নুরুর নেতৃত্বে তার সন্ত্রাসী বাহিনীর ৪০-৫০ জন সদস্য গ্রেফতার মিঠুনকে ছিনিয়ে নিতে থানায় প্রবেশ করেন। তারা থানার মধ্যে তাণ্ডব শুরু করেন।

ওসি শহিদুল ইসলাম থানায় এলে নুরু ও তার বাহিনীর উত্তেজিত সদস্যরা ওসিকে ধাক্কা দিয়ে পুলিশের ওপর হামলা চালান। এতে কয়েকজন কর্মকর্তাসহ পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হন। পুলিশের তৎপরতায় পরিস্থিতি বেগতিক দেখে নুরু তার বাহিনীর সদস্যরা থানা থেকে পালিয়ে যান।

পরবর্তীতে আবারো মিঠুনকে ছাড়িয়ে নিতে থানায় হামলার জন্য নুরু ও তার লোকজন মাঝিড়াপাড়া এলাকায় নিজ বাড়ির কাছে মহাসড়কে অবস্থান নেন। খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে গেলে তাদের লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হয়। একপর্যায়ে মহাসড়কে অবস্থানকারীদের ছত্রভঙ্গ এবং ঘটনাস্থল থেকে নুরুজ্জামান নুরুসহ নয়জনকে গ্রেফতার করা হয়। ঘটনাস্থলে ফেলে যাওয়া ৩৬টি মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে।

জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাসহ ১০ মামলার আসামি ও জামায়াত-বিএনপির অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের পুনর্বাসনকারী নুরুজ্জামান নুরু জানান, তার ম্যানেজার, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হাসান নাজমুলের বাড়িতে আগ্নেয়াস্ত্র আছে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে নাজমুল হাসান পালিয়ে গেলে তার শয়ন ঘরের সিলিং থেকে আট রাউন্ড গুলিভর্তি একটি বিদেশি পিস্তল, তিন বোতল ফেনসিডিল ও এক কেজি গাঁজা পাওয়া যায়।

ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে নুরুজ্জামান নুরু জানান, তার বাড়িতে আরও একটি পিস্তল আছে। তার তথ্য মতে বাড়ির তিনতলার জলছাদ থেকে সাত রাউন্ড গুলিভর্তি একটি বিদেশি পিস্তল পাওয়া যায়।

শাজাহানপুর থানার ওসি শহিদুল ইসলাম জানান, এসআই ফারুক থানায় নুরু ও তার সহযোগী হাসান নাজমুলের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনে মামলা করেছেন। এছাড়া এসআই আনিসুর রহমান পুলিশের ওপর হামলা ও সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার ঘটনায় নুরুসহ ৪৫ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও অনেকের বিরুদ্ধে মামলা করেন। বর্তমানে ডিবি পুলিশ মামলা দুটির তদন্ত করছে।

অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হলেন এসআই আশিকুর রহমান। পুলিশের ওপর হামলা ও সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার মামলা তদন্ত করছেন এসআই আবু জাফর।

ডিবি ওসি মোস্তাফিজ হাসান জানান, মঙ্গলবার সকালে আসামিদের আদালতে হাজির করা হয়। শুনানি শেষে আদালত দুটি মামলায় নুরুকে ৩ দিন করে ৬ দিন এবং পুলিশের ওপর হামলা ও সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার মামলায় নুরু বাহিনীর ৮ সদস্যকে ৩ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

বগুড়া জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ও খরনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাজেদুর রহমান সাহীন জানান, দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে নুরুজ্জামান নুরুকে দলীয় পদপদবি থেকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিতে কেন্দ্রে অবহিত করা হয়েছে। এছাড়া অন্যরা কোনো পদে না থাকায় তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

এদিকে গত ১০ দিন আগে নুরুকে গ্রেফতার করা হলেও মঙ্গলবার বিকাল পর্যন্ত তাকে মাঝিড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদ থেকে বরখাস্ত করা হয়নি।

বগুড়ার স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মাসুম আলী বেগ জানান, নুরুজ্জামান নুরুর বিষয়ে মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনো আদেশ আসেনি।


এনএনবিডি ডেস্ক:

মন্তব্য করুন