• , |
  • ঢাকা, বাংলাদেশ ।
সর্বশেষ নিউজ
* ঘূর্ণিঝড় রেমাল: সমুদ্রবন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত * ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় রেমাল, দুপুরে আঘাত হানার শঙ্কা * ভারতে শিশু হাসপাতালে আগুনে পুড়ে ৭ নবজাতকের মৃত্যু * মোস্তাফিজের রেকর্ডে ১০ উইকেটে জিতল বাংলাদেশ * ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় রেমাল, সমুদ্রবন্দরে বিশেষ সতর্কতা * রুয়েট শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার * হোয়াইটওয়াশ লজ্জা বাঁচাতে টস জিতে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ * সার্ভারে ত্রুটি, বন্ধ মেট্রোরেল চলাচল * জাহেলিয়াত থেকে তরুণ প্রজন্মকে বাঁচাতে ইসলামী শিক্ষার বিকল্প নেই : ড. চৌধুরী মাহমুদ হাসান * সর্বোচ্চ দামের রেকর্ড গড়ার পর বড় পতনে স্বর্ণ

ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে হাজিদের দেয়া হবে জমজমের পানি

news-details

ছবি : সংগৃহীত


জমজমের পানি হজযাত্রীদের কাছে সহজলভ্য করতে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করবে সৌদি আরবের একটি কোম্পানি। কোম্পানিটি হজযাত্রীরা প্রায় চার কোটি জমজম পানির বোতল সরবরাহ করবে। সেই সংখ্যার অনুপাতে প্রত্যেক হজযাত্রী পাবেন ২২টি করে জমজম পানির বোতল।

ইতিমধ্যে চলতি বছরের হজের মৌসুম শুরু হয়েছে।  গত  ৮ ও ৯ মে হজযাত্রীদের প্রথম ফ্লাইট পবিত্র ভূমিতে অবতরণ করে। পবিত্র স্থানগুলোতে আগত সকল হাজিদের কাছে জমজমের পানি খুবই তাৎপর্যপূর্ণ।

হজযাত্রীদের জন্য ভালো সেবা নিশ্চিত করতে সৌদির একটি কোম্পানি হজযাত্রীদের জমজমের পানির বোতল সরবরাহ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এবারের হজে অংশ নেওয়া হাজিদের মধ্যে মোট ৪০ কোটি পানির বোতল বিতরণ করা হবে। প্রত্যেক হজযাত্রী ২২ বোতল জমজমের পানি পাবেন বলে নিশ্চিত করেছেন আল জামাজেমাহ কোম্পানির বোর্ড সদস্য ইয়াসির শুশুর । 

ইয়াসের জানান, হজযাত্রীদের সাথে সরাসরি যোগাযোগের জন্য ডিজিটাল চ্যানেলগুলোও প্রস্তুত করা হয়েছে, যাতে একটি সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা প্রক্রিয়া নিশ্চিত হয়।

সৌদি বার্তা সংস্থা এসপিএ জানিয়েছে, বোতলগুলো বারকোড দিয়ে প্রিন্ট করা হবে যা সহজেই স্ক্যান করা যাবে। হজযাত্রীদের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় জমজম পানির চাহিদা ও  জমজম পানির বোতল সরবরাহ  নিশ্চিত করতে ডিজিটাল রূপান্তরের সর্বোচ্চ মান ব্যবহার করা হবে।

সংস্থাটি হজযাত্রীদের সেবা প্রদানে একটি নিরবিচ্ছিন্ন ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে কার্যকর পরিষেবা প্রদানের গুরুত্ব উপলদ্ধি করেছ। সেই আলোকে আল জামাজেমাহ ইতিমধ্যে তার পরিচালনার দক্ষতা বাড়ানোর জন্য হজ মৌসুমের আগে কর্মীদের প্রশিক্ষণ এবং কর্মশালার পরিকল্পনা করেছে। মক্কায় ফিল্ড সার্ভিস সেন্টার এবং প্রবেশ ও প্রস্থানের স্থানে উন্নত সেবা নিশ্চিত করাও প্রতিষ্ঠানটির লক্ষ্য।

জমজমের পানি শুধু হজযাত্রীদের জন্য নয়, অন্যান্য ব্যক্তির জন্যও গুরুত্বপূর্ণ। সুতরাং আশীর্বাদপ্রাপ্ত পানিটি হজযাত্রীরা তাদের দেশে ফিরে যাওয়ার পরেও তাদের বন্ধুবান্ধব এবং আত্মীয়দের জন্য উপহার সামগ্রী হিসাবে ব্যবহার করে।

পবিত্র হজ চলতি বছরের ১৪ জুন হবে বলে আশা করা হচ্ছে। তবে এটি চাঁদ দেখার উপর নির্ভর করায় তারিখটি পরিবর্তনও হতে পারে। এরই মধ্যে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও অন্যান্য দেশ থেকে হজযাত্রীদের প্রথম দলটি সৌদি আরবে পৌঁছেছে।

সরকারি সূত্র মতে, এ বছর ২০ লাখ মুসলমান হজ পালনের সুযোগ পাবেন বলে আশা করা হচ্ছে। তিন কোটি মুসলমানের উপস্থিতিতে ওমরাহ আয়োজনের সফল পরিচালনার পর সৌদি কর্তৃপক্ষ এরই মধ্যে এমন জনসমাগম সামাল দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

প্রতি বছরই বাড়ছে হজযাত্রীর সংখ্যা। কোভিড মহামারির সমাপ্তি নিশ্চিত করে সৌদি আরব ২০২৩ সালে ১৮ লাখ মুসলমানকে হজের জন্য স্বাগত জানিয়েছে।  হজ একটি ফরজ কর্তব্য এবং শারীরিক ও আর্থিকভাবে সচ্ছল ব্যক্তিদের দ্বারা জীবদ্দশায় অন্তত একবার হজ করা আবশ্যক।


আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

মন্তব্য করুন