• , |
  • ঢাকা, বাংলাদেশ ।
সর্বশেষ নিউজ
* জাতীয় ঈদগাহে প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত * আগামীকাল পবিত্র ঈদুল আজহা * সৌদি আরবে জর্ডান ও ইরানের ১৯ হজযাত্রীর মৃত্যু * শুভেচ্ছা * ফ্রিজে গরুর মাংস পাওয়ায় মধ্যপ্রদেশে ১১ মুসলিমের বাড়ি গুঁড়িয়ে দিল পুলিশ * সেন্টমার্টিন পরিস্থিতি নিয়ে ছাত্রশিবিরের উদ্বেগ প্রকাশ * সীতাকুণ্ডে গঙ্গাস্নানে নেমে পদদলিত হয়ে দুই শিশুর মৃত্যু * মৌসুমের শুরুতেই দুই বিভাগে ভারী বৃষ্টি ও বন্যার শঙ্কা * গাজার দক্ষিণে কৌশলগত যুদ্ধবিরতি ইসরাইলের * সোনালী ব্যাংককে ১ কোটি রুপি জরিমানা ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের

ঋণনির্ভর উচ্চাভিলাসী এডিপি এবং বাস্তবতা

news-details

ফাইল ছবি


গত ৬ জুন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী জাতীয় সংসদে ৭ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করেন। বাজেটে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫ লাখ ৪১ হাজার কোটি টাকা। বাকি ২ লাখ ৫৬ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেওয়া হবে।এর মধ্যে ২ লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকার বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) অনুমোদন রয়েছে।

ব্যাংক খাতে নানা সংকট সত্বেও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেটে সরকার ১ লাখ ৩৭ হাজার ৫০০ কোটি টাকার ব্যাংক ঋণের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছে। মূলত বাজেট ঘাটতি মেটাতেই সরকারের ব্যাংক ঋণনির্ভরতা বাড়ছে।বাকিটা আসবে বৈদেশিক ঋণ থেকে।

চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেটের আকার ছিল ৭ লাখ ৬১ হাজার ৭৮৫ কোটি টাকা। যদিও সংশোধিত বাজেটের এ আকার কমে বর্তমানে দাঁড়িয়েছে ৭ লাখ ১৪ হাজার ৭১৮ কোটি টাকা।

২০২৪-২৫ অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) প্রণয়নে গত ১৪ মার্চ নির্দেশনা দেয় পরিকল্পনা কমিশন। সেই নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে সব বাস্তবায়নকারী মন্ত্রণালয় ও বিভাগের কাছ থেকে এডিপির জন্য মোট দুই লাখ ৭৬ হাজার ৪০২ কোটি ৪৬ লাখ টাকার প্রাথমিক চাহিদা পাওয়া যায়। এর মধ্যে সরকারি অর্থায়ন এক লাখ ৮৫ হাজার ৩৯১ কোটি ১৯ লাখ টাকা ও প্রকল্প ঋণ-অনুদান ৯১ হাজার ১১ কোটি ২৭ লাখ টাকা।

পরে অর্থ বিভাগ থেকে পাঠানো নির্দেশনা অনুযায়ী ২০২৪-২৫ অর্থবছরের এডিপির আকার দুই লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকা নির্ধারণপূর্বক কার্যক্রম বিভাগকে অবহিত করা হয়। এর মধ্যে সরকারি অর্থায়ন এক লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকা বা ৬২ দশমিক ২৬ শতাংশ। উন্নয়ন ব্যয় মেটাতে বৈদেশিক ঋণ-অনুদানের টার্গেট এক লাখ কোটি টাকা বা ৩৭ দশমিক ৭৪ শতংশ।

২০২৩-২৪ অর্থবছরে সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ ছিল ৮৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। সে হিসাবে এডিপিতে এক অর্থবছরের ব্যবধানে বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ বাড়ছে ১৬ হাজার ৫০০ কোটি টাকা।

চলতি ২০২৩-২৪ অর্থ বছরের বিগত ১০ মাসে এডিপি বাস্তবায়ন পরিস্থিতি মোটেও সন্তোষজনক নয়।২০২৩-২৪ অর্থবছরে সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে বরাদ্দ ছিল ২ লাখ ৫৪ হাজার ৩ শ ৯১ দশমিক ৬৪ কোটি টাকা। জুলাই ২০২৩ থেকে এপ্রিল ২০২৪ পর্যন্ত ১০ মাসে বাস্তবায়ন হয়েছে মাত্র ১ লাখ ২৫ হাজার ৩ শ ১৫ দশমিক ৬৮ কোটি টাকা।শতকরা হিসেবে এর পরিমান ৪৯.২৬ % । বাকী ২ মাসে অবশিষ্ট ৫১.৭৪% এডিপি কিভাবে বাস্তবায়ন হবে সেটাই প্রশ্ন।

বিশ্লেষক মহল বলছেন,যেখানে ১০ এডিপি বাস্তবায়ন পরিস্থিতি ৫০% এর নীচে সেখানে আগামী অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেটে তা আরো ১১ হাজার কোটি টাকা বাড়ানো কল্পনাবিলাস ছাড়া কিছু নয়।এতে দুর্নীতি এবং ঋণনির্ভরতা আরো বাড়বে।


শহীদুল ইসলাম

মন্তব্য করুন