ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:
ব্রেকিং নিউজ
  • অমর একুশে বইমেলা চলবে ১৭ মার্চ পর্যন্ত**
  • টাঙ্গাইলের কালিহাতিতে তিনটি ট্রাকের সংঘর্ষে ১ জন নিহত
  • গাইবান্ধায় পুলিশের সাথে বিএনপি’র ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া
  • ঘোষণা ছাড়াই বন্ধ পাসপোর্ট কার্যক্রম, ভোগান্তিতে মানুষ

নিউজ ডেস্ক

১০ মার্চ ২০২২, ১২:০৩

খেলায় হেরে রেফারিকে মারতে যান পিএসজি চেয়ারম্যান!

26156_31.jpg
ম্যাচ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে রাগ-ক্ষোভে ফুঁসতে ফুঁসতে ভিআইপি বক্স থেকে নেমে দ্রুত রেফারির কক্ষের খোঁজ নিতে রেফারির কক্ষে ছুটে যান পিএসজি চেয়ারম্যান খেলাইফি। ম্যাচটির সম্প্রচারক সংস্থা মুভিস্টারের সাংবাদিক মনিকা মারশান্তের সূত্র ব্যবহার করে খবরটি জানাচ্ছে মাদ্রিদভিত্তিক সংবাদমাধ্যম দৈনিক মার্কা। রেফারির কক্ষ কোথায় সেটি জিজ্ঞেস করতেও দেখা যায় খেলাইফিকে। এসময় ভুল করে রিয়ালের প্রতিনিধি মেহিয়া দাভিলার কক্ষে ঢুকে পড়েন তিনি।

দুই লেগ মিলে খেলা ১৮০ মিনিটের। যেখানে ১৫০ মিনিট পর্যন্ত ২-০ গোলে এগিয়েই ছিল প্যারিস সেইন্ট জার্মেই (পিএসজি)। কিন্তু শেষ ত্রিশ মিনিটের মধ্যে সব হিসেবনিকেশ বদলে দেয় রিয়াল মাদ্রিদ। মাত্র ১৮ মিনিটের মধ্যে তিন গোল করে দলকে শেষ আটে তোলেন করিম বেনজেমা।

শুরু থেকে এগিয়ে থেকেও শেষ পর্যন্ত ৩-১ গোলে হেরে, দুই লেগ মিলে ২-৩ ব্যবধানে পিছিয়ে থেকে বিদায় নিতে হয়েছে পিএসজিকে। যা একদমই মানতে পারেননি ক্লাবটির চেয়ারম্যান নাসের আল খেলাইফি। বিশেষ করে রেফারির দিকেই আঙুল তার।
ম্যাচের ৬১ মিনিটের সময় মার্কো ভেরাত্তির দূর থেকে দেওয়া ব্যাক পাসে খানিকটা ভড়কে যান পিএসজি গোলরক্ষক জিয়ানলুইজি ডনারুম্মা। দৌড়ে এসে তাকে চ্যালেঞ্জ জানান বেনজেমা। বল ক্লিয়ারের চেষ্টায় ডি-বক্সের আরেক পাশে পাস দেন ডনারুম্মা। সেখানে প্রস্তুত ছিলেন ভিনিসিয়াস জুনিয়র।

ফাঁকায় বলটি পেয়ে নিজের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বেনজেমাকে পাস দেন ব্রাজিলিয়ান তরুণ। ডি-বক্সের মাঝামাঝি জায়গা থেকে সহজেই সেটি গোলে পরিণত করেন বেনজেমা। এই গোল নিয়েই যত আপত্তি পিএসজির। তাদের মতে, ডনারুম্মাকে ফাউল করেছেন বেনজেমা।

পরে সংবাদ সম্মেলনে পিএসজি কোচ মাউরিসিও পচেত্তিনোও রিয়ালের প্রথম গোল নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেন, ‘এমন মনে হচ্ছে যে, অনেক অবিচার করা হয়েছে। ঐ গোলটার কারণেই এমন মনে হচ্ছে। বেনজেমার ফাউলটা ওখানে পরিষ্কার।’

তিনি আরো যোগ করেন, ‘অনেক বড় ধাক্কা ছিল গোলটা। ১৮০ মিনিটের হিসাবে আমরাই ভালো খেলেছি, কিন্তু ১-১ হয়ে যাওয়ার পর রিয়াল মাদ্রিদের আর হারানোর কিছু ছিল না। ওটা তো (ডনারুম্মার) ভুল নয়, কারণ ওটা পরিষ্কার ফাউল। আমি ৩০-৪০ বার দেখেছি, প্রত্যেক কোণ থেকে।’