ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:
ব্রেকিং নিউজ
  • অমর একুশে বইমেলা চলবে ১৭ মার্চ পর্যন্ত**
  • টাঙ্গাইলের কালিহাতিতে তিনটি ট্রাকের সংঘর্ষে ১ জন নিহত
  • গাইবান্ধায় পুলিশের সাথে বিএনপি’র ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া
  • ঘোষণা ছাড়াই বন্ধ পাসপোর্ট কার্যক্রম, ভোগান্তিতে মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদক

১১ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ১১:০২

১০ বছরেও উদঘাটিত হয়নি সাগর-রুনি হত্যার রহস্য

24964_111.JPG
সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনির নৃশংস হত্যাকাণ্ডের পেরিয়ে গেছে এক দশক। কিন্তু তদন্তে অগ্রগতি না হওয়ায় উদঘাটন হয়নি আলোচিত এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক সংস্থার হাত বদল হলেও আদালতে দাখিল হয়নি মামলার তদন্ত প্রতিবেদন।

তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন মাত্র ৪৮ ঘণ্টায় তদন্ত শেষ করার আশ্বাস দিয়েছিলেন। দশ বছর পার হলেও শেষ হয়নি তদন্তের কাজ। তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলে ইতোমধ্যে আদালত থেকে ৮৫ বার সময় নেওয়া হয়েছে।

র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি এএনএম ইমরান খান সাংবাদিকদের বলেন, আলামত যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানো হয়েছিলো। যুক্তরাষ্ট্র থেকে ডিএনএ ও ফরেনসিক রিপোর্ট না আসার কারণে তদন্ত কাজ বিলম্ব হচ্ছে। সন্দেহভাজন কয়েকজন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সন্তানের হত্যাকারীর বিচার দেখার আগেই দুনিয়া থেকে বিদায় নিয়েছেন রুনির মা। একই আশঙ্কায় দিন কাটাচ্ছেন সাগরের মা সালেহা। তবুও আশায় বুক বাঁধেন তিনি।

সাগরের মা বলেন, সন্তান হত্যার বিচার একদিন হবেই। নাতি মেঘ (সাগর-রুনির একমাত্র সন্তান) যেন তার পিতা-মাতা হত্যার বিচার দেখতে পারে। আমার শেষ নিঃশ্বাস থাকা পর্যন্ত বিচার চেয়ে যাবো। দুনিয়ায় বিচার না হলেও আল্লাহ অবশ্যই বিচার করবেন

২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাতে ঢাকার পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়া বাসায় সাংবাদিক দম্পতি মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সরওয়ার এবং এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনি নির্মমভাবে খুন হন। পরদিন ভোরে তাদের ক্ষত-বিক্ষত লাশ উদ্ধার করা হয়।

এঘটনায় রুনির ভাই নওশের আলী রোমান বাদী হয়ে শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা করেন। প্রথমে মামলাটির তদন্ত করেন শেরেবাংলা নগর থানার একজন কর্মকর্তা। ১৬ ফেব্রুয়ারি মামলার তদন্ত ভার গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওপর ন্যস্ত করা হয়।

দুই মাস পর হাইকোর্টের আদেশে মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নকে (র‌্যাব)। একাধিক কর্মকর্তার হাত বদলে এক দশকেও সংস্থাটি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেনি।

এদিকে প্রতিবারের ন্যায় সাগর-রুনি হত্যার বিচার দাবিতে তিন দিনের কর্মসূচি গ্রহণ করেছে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ)। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টায় ডিআরইউ চত্বরে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়।

শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় ডিআরইউ চত্বরে প্রতিবাদ সমাবেশ এবং রোববার সকালে সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি পেশ করা হবে বলে সাংবাদিক সংগঠনটির পক্ষ থেকে জানানো হয়।